বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে আসতে পারে জিওনি

জিওনি

চাইনিজ ফোন মানেই যে কমদামী, বাজে পারফরম্যান্সের ফোন, সেই ধারণা অনেক আগে থেকেই বদলাতে শুরু করেছে। বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান কেবল অন্যান্য ব্র্যান্ডের জন্য ফোন তৈরিতেই আর থেমে থাকেনি, বরং নিজেদের নামেই প্রিমিয়াম সব ফোন বাজারজাত করতে শুরু করে। সেই ধারাতেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠা অন্যতম একটি কোম্পানির নাম জিওনি। ইতোমধ্যেই বাংলাদেশে জিওনির তৈরি বেশ কিছু স্মার্টফোন বিক্রি হচ্ছে। তবে সেগুলো জিওনি নিজে বিক্রি করছে না। সম্প্রতি প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ধারণা করা হচ্ছে, শিগগিরই দেশের বাজারে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে এই কোম্পানিটি।

gionee bangladesh

সম্প্রতি কোম্পানিটি পেশাদারদের নেটওয়ার্ক লিংকডইনে একটি চাকরি পোস্ট করেছে যেখানে তারা সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার পরীক্ষা করার জন্য বাংলাদেশে ‘টেস্ট ইঞ্জিনিয়ার’ খুঁজছে। কোম্পানির এই জব পোস্টিং থেকেই ধারণা করা হচ্ছে বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের পণ্য নিজেরাই বিক্রি করার কথা ভাবছে। ইতিমধ্যেই পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করে নিয়েছে জিওনি। তবে মোবাইলের ক্ষেত্রে বাংলাদেশে বিশাল একটি বাজার রয়েছে বলে এদেশের প্রতি জিওনির আগ্রহী হয়ে ওঠা কেবলই সময়ের ব্যাপার ছিল।

এর আগে আরেক চাইনিজ নামকরা প্রতিষ্ঠান অপো এভাবেই বাংলাদেশে নিজেদের তৈরি পণ্য নিজেরা বিক্রি শুরু করে। আনুষ্ঠানিকভাবে অপো বাংলাদেশের উদ্বোধন হওয়ার আগে তারাও এভাবেই অনলাইনে চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে, যেখান থেকে আমরা তাদের বাংলাদেশে আসার ইঙ্গিত পাই। অপো বাংলাদেশে আসলেও তারা নিজেদের শোরুমের বদলে বিভিন্ন ডিলারের মাধ্যমেই ফোন বিক্রি করে, যে কারণে প্রত্যাশার তুলনায় সাড়া কিছুটা কম মিলেছে বলে জানা গেছে।

তবে তুলনামূলকভাবে জিওনির কমদামী ফোনের বাহার অপোর চেয়ে বেশি। তাই বাংলাদেশে আসলে জিওনিও কি অপোর মতোই ডিলারের মাধ্যমে ফোন বিক্রি করবে নাকি নিজেরাই শোরুমের মাধ্যমে ক্রেতা আকর্ষণ করবে, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জিওনির নাম শুনেছেন কি? জিওনি বাংলাদেশে নিজেদের পণ্য বিক্রি শুরু করলে তার প্রতিক্রিয়া কেমন হতে পারে বলে মনে করেন?

This article also appears on Android Kothon English.

  • Abbada

    ওয়ালটন & সিম্ফোনির দিন শেষ 😀