অ্যাপলের কাছে হারার পর গ্যালাক্সি এস থ্রি বিক্রির ধুম

গ্যালাক্সি এস থ্রিস্যামসাং বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় কোম্পানি অ্যাপলের কাছে পেটেন্ট ভঙ্গের দায়ে চলমান আইনি লড়াইয়ে শোচনীয়ভাবে হেরে যাওয়ার পর অনেকেই ভাবতে শুরু করেন, এখানেই হয়তো অ্যান্ড্রয়েডের ইতি। তবে খোঁজ-খবর রাখলেই জানা যায় যে, এর সঙ্গে অ্যান্ড্রয়েডের সম্পর্ক খুব কমই। স্যামসাং যেসব পেটেন্ট ভঙ্গ করেছে বলে আদালত রায় দিয়েছে তার বেশিরভাগই তাদের নিজেদের পণ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত। তাই অ্যান্ড্রয়েডের উপর এর প্রভাব ততোটা নেই।

তবে পেটেন্ট মামলায় হারার পর ১.০৫ বিলিয়ন ডলার জরিমানা দেয়ার নির্দেশ ছাড়াও আরেকটি জিনিস পেয়েছে স্যামসাং, আর তা হচ্ছে সাধারণ ভোক্তাদের উদ্বিগ্নতা। জানা গেছে, স্যামসাং-এর হেরে যাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর স্যামসাং গ্যালাক্সি এস থ্রি বিক্রি বন্ধ হয়ে যেতে পারে বা বাজার থেকে উঠিয়ে নেয়া হতে পারে এই আশঙ্কায় মানুষ তড়িঘড়ি করে এস থ্রি কিনতে শুরু করেন। গ্লোবাল ইকুইটিস রিসার্চ-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেশ কয়েকটি স্টোরে রাতারাতি স্যামসাং গ্যালাক্সি এস থ্রি’র স্টক শেষ হয়ে গেছে।

এটিঅ্যান্ডটি, টি-মোবাইল, ভেরিজন ওয়্যারলেসসহ ১৬টি বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের উপর জরিপ করেছে গ্লোবাল ইকুইটিস রিসার্চ। এই সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ট্রিপ চৌধুরী ভেরিজনের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছেন, আগস্টে আইফোনের চেয়ে গ্যালাক্সি এস থ্রি’র বিক্রি তুলনামূলকভাবে বেশি ছিল।

তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রের দু’টি কস্টকো স্টোর টি-মোবাইল ও এটিঅ্যান্ডটি’র সবগুলো গ্যালাক্সি এস থ্রি বিক্রি করে ফেলেছে। আরেকটি এটিঅ্যান্ডটি মডেলের সবগুলো এবং ভেরিজনের তিনটি স্টোরের মধ্যে দু’টিই গ্যালাক্সি এস থ্রি’র সব হ্যান্ডসেট বিক্রি করে ফেলেছে।

এই বিপুল জনপ্রিয়তা ও হঠাৎই তুলনামূলক বিক্রি বেড়ে যাওয়ার ফলে স্যামসাং নতুন করে গ্যালাক্সি এস থ্রি হ্যান্ডসেট বাজারে ছাড়বে নাকি তারা তাদের নতুন গ্যালাক্সি নোট ২ নিয়েই থাকবে এ ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি। তবে একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এ বছরের শেষের দিকেই গ্যালাক্সি এস থ্রি ব্যান করার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হবে অ্যাপল।

ততোদিন পর্যন্ত যদি বিক্রির এই হার চলতে থাকে, তাহলে হয়তো বলাই যায় যে, মামলাটা হেরে স্যামসাং-এর সবদিক দিয়ে ক্ষতি হয়নি।

আপডেটঃ গ্যালাক্সি এস থ্রি বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞার আবেদন করলো অ্যাপল। বিস্তারিত